আইপিএল শুরু হবে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে

প্রকাশিত: ৪:২২ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০২০

আইপিএল শুরু হবে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে

ডেস্ক নিউজ, বিডি খেলাযোগঃ-প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে এ বছরের পিছিয়ে যাওয়া আইপিএল আগামী সেপ্টেম্বর–অক্টোবরে করার পরিকল্পনা প্রায় ঠিক করে ফেলেছে ভারতীয় বোর্ড। আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ব্রিজেশ প্যাটেল এই তথ্য জানিয়েছেন।

একই সঙ্গে জানিয়েছেন, এই সিদ্ধান্ত অনেকটাই নির্ভর করছে, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে আইসিসি-র সিদ্ধান্তের উপরে। আবার ভারতীয় বোর্ডের প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙুলির দাবি, এ বারের আইপিএল ক্লোজড ডোর হওয়ার ব্যাপারে বোর্ড আত্মবিশ্বাসী। সবরকম সম্ভাবনাই খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ভারতীয় বোর্ডের পক্ষ থেকে সব ক’টি অনুমোদিত সংস্থাকে তৈরি থাকতে বলে এই বিষয়ে চিঠিও পাঠানো হয়েছে।

আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ব্রিজেশ বলছেন, ‘আমরা আইপিএল আয়োজনের জন্য তৈরি। কিন্তু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে আইসিসির সিদ্ধান্ত জানার পরেই আমরা আইপিএলের সূচি নিয়ে কাজ করতে পারব। আশা করছি, খুব দ্রুত আমরা আইসিসি-র সিদ্ধান্ত জানতে পারব। প্রয়োজনে আমরা টুর্নামেন্ট দেশের বাইরেও আয়োজন করতে পারি।’

প্রসঙ্গত, ভারতের বাইরে আইপিএল হলে তা হতে পারে সংযুক্ত আরব আমিরাত বা শ্রীলঙ্কাতে। আমিরাত ও শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট বোর্ডও নিজেদের দেশে আইপিএল আয়োজন করতে আগ্রহী।

প্যাটেল অবশ্য স্বীকার করে নিয়েছেন, ভারতের মাটিতে আইপিএল আয়োজনকেই অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। সব কিছুই নির্ভর করবে, দেশটির করোনাভাইরাস পরিস্থিতি কীরকম থাকে, তার উপর। ‘এমন হতে পারে, টুনার্মেন্টের প্রথম দিকের কিছু ম্যাচ আমরা বিদেশে আয়োজন করলাম। তবে ভারতে ফিরলে আবার কোয়ারান্টিনে যেতে হতে পারে। প্রয়োজনে পুরো টুনার্মেন্ট বিদেশে করা যায়।’

একই সঙ্গে আবহাওয়ার দিকটাও মাথায় রাখতে হবে ভারতীয় বোর্ডকে, সেপ্টেম্বরে ভারতে বেশ কিছু জায়গায় বর্ষার প্রকোপ থাকবে প্রবল ভাবে। প্যাটেলের কথায়, ‘ভারতে হোক বা দেশের বাইরে, টুনার্মেন্ট দুটি বা তিনটি ভেন্যুর মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। এটাও ঠিক, দর্শক ছাড়াই আয়োজিত হবে টুনার্মেন্ট। তবে ভারতীয় দর্শকরা প্রাইম টাইমে টুনার্মেন্ট দেখেত পারবেন বলে সমস্যা হবে না।’

প্যাটেলের মতোই আত্মবিশ্বাসী সৌরভও। বলেছেন, ‘বোর্ড আইপিএল করা সব সম্ভাবনা খতিয়ে দেখছে, এমনকী দরকার হলে ফাঁকা স্টেডিয়ামেও টুনার্মেন্ট করা হতে পারে। দর্শক, ফ্র্যাঞ্চাইজি, প্লেয়ার, ব্রডকাস্টার, স্পনসর সহ যাঁরাই টুর্নামেন্টের সঙ্গে জড়িত, সবাই টুনার্মেন্ট হওয়ার পক্ষে। ভারতের এবং বিদেশের ক্রিকেটাররা টুনার্মেন্ট হওয়া নিয়ে ভীষণ ভাবে আগ্রহী। আমরাও আশাবাদী এবং খুব দ্রুত এই নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চাই।’

Sharing is caring!

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ