ওয়ান ডাউনেই সবচেয়ে সফল আশরাফুল!

প্রকাশিত: ১:০৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৪, ২০২০

ওয়ান ডাউনেই সবচেয়ে সফল আশরাফুল!

ডেস্ক নিউজ,খেলাযোগ বিডি টোয়েন্টিফোরঃ
মোহাম্মদ আশরাফুল, নামটা এখনো দেশের অনেক ক্রিকেট ভক্তের কাছে তাদের হৃদয়ে মধ্যমণি। ৭ বছর থেকে নেই জাতীয় দলে। তবুও আশরাফুলের প্রতি ভালোবাসা ভক্তদের কমেনি বরং বেড়েছে। তারা আছে অপেক্ষায়, প্রিয় আশরাফুলকে একবার হলেও দেখতে চান লাল – সবুজের জার্সিতে। সে কারণে বার বারই বিভিন্নভাবে আশরাফুলকে দলে নেওয়ার দাবী জানান ভক্তরা। একটু সুযোগ পেলেই অনুরোধ কিংবা দাবী করে বসেন দেশের ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা বিসিবি কিংবা বিসিবি সংশ্লিষ্ট কারো কাছেই।

ক’রোনার দীর্ঘ লকডাউনের সময়টাতে মাঠের ক্রিকেট না থাকায় অনেক গণমাধ্যম বিসিবি সংশ্লিষ্ট কাউকে কিংবা কোন ক্রিকেটারকে লাইভ অনুষ্ঠানে অতিথি করেছেন। ক্রিকেট না থাকায় নিয়মিত এসব লাইভ অনুষ্ঠানে আসতে খুব একটা অসুবিধা হয়নি ক্রিকেটার কিংবা ক্রিকেট সংশ্লিষ্টদের। ফেইসবুকে প্রচারিত এসব লাইভ অনুষ্ঠানে মন্তব্য করার মাধ্যমে সাধারণ ভক্তরাও বিভিন্ন প্রশ্ন কিংবা মতামত জানাতে পারেন। আর সেই সুযোগটা নিয়েছিলেন আশরাফুল প্রেমীরাও।

ক্রিকেট ভিত্তিক ওয়েবসাইট বিডিক্রিকটাইমের ফেইসবুক পেজে একদিন লাইভে অতিথি হয়ে আসেন দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার সুমন। সেখানে বার বার আশরাফুল ভক্তরা তাদের কাছে প্রশ্ন করেছেন আসলে আশরাফুলকে কেন তারা দলে নিচ্ছেন না কিংবা কি করলে দলে পাবেন আশরাফুল? এর জবাবে দুই নির্বাচক যে পরিসংখ্যানটা দুলে ধরে খোঁড়া অযুহাত দিয়েছেন সেটাকে মিথ্যাচার বললেও ভুল হবেনা। একটু তাদের মুখেই জেনে আসা যাক।

বাশারের ভাষায়, ‘আশরাফুল ব্যাটিং করতো ৪ আর ৫ এ। সেখানে এখন ব্যাটিং করে মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসান। ৬ এ আছে মাহমুদউল্লাহ। এখন এই তিনজনকে এই জায়গা থেকে সরানো তো এখন কঠিন। ৩, ৭ নং এ আশরাফুল ব্যাটিং করে না। আবার ও চলে যাওয়ার পরে এই তিনজন তিনটা জায়গা দখল করে নিয়েছে। তাই আশরাফুলের ফিরতে হলে আরও ধারাবাহিক ও অসাধারণ কিছু পারফর্ম করতে হবে। আমরা চাই না বা আলাপ করি না এমন না।’

আরেক নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুও একই কথা বলেছেন।

যারা নির্বাচক দল গঠন করেন নিশ্চয়ই ক্রিকেটারদের পরিসংখ্যান তাদের মুখস্থ থাকার কথা। কিন্তু আদৌও তারা কি আশরাফুলের পরিসংখ্যান জেনেই কথাগুলো বলেছেন? একটু দেখে নেওয়া যাক।

তারা বলেছেন ৩ নম্বরে আশরাফুল ব্যাটিং করেন না। অথচ পরিসংখ্যান বলছে, ক্রিকেটের তিন ফরম্যাট মিলে আশরাফুল সর্বমোট ৬১ বার ৩ নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমেছিলেন। ব্যাটিংয়ে নেমে এই পজিশনে আশরাফুলের ব্যর্থতার রেকর্ডটাও সফলতার চেয়ে বেশি নয়।

টেস্টে ৩ ম্যাচে ৩৫১ রান করেছেন আশরাফুল। যেখানে গল টেস্টে ক্যারিয়ার সেরা ১৯০ রানের ইনিংসটিও খেলেছেন তিন নম্বরে নেমেই। ওয়ানডেতে সর্বমোট ৫১ ইনিংসে তিনে নেমেছেন আশরাফুল। সব মিলিয়ে করেছেন ৯৮৪ রান। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে যে ৩ টি সেঞ্চুরি সেটাও করেছেন এই তিন নম্বরে নেমেই। টি-টোয়েন্টিতে সর্বমোট ৭ ইনিংসে ওয়ান ডাউনে ব্যাট করেছেন আশরাফুল। যেখানে সর্বোচ্চ ২১.১৮ গড়ে করেছেন ১৪৮ রান। ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ৬৫ রানের ইনিংসটাও খেলেছেন তিন নম্বরে নেমেই।

ঘরোয়া লীগের দিকে যদি তাকানো যায়, তবে খুব বেশিদূর আপনাকে যেতে হবেনা। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ক্রিকেটে ফিরে ২০১৮ সালে কলাবাগানের হয়ে ৬৬৫ রান করে জাতীয় লিগের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকাতে তিনে ছিলেন আশরাফুল। যেখানে ৫ টি সেঞ্চুরি করেছিলেন। হ্যাটট্রিক শতকও ছিল। আর সব গুলো ম্যাচেই নেমেছিলেন তিনে।

এরপরও কি নির্বাচকরা বলবেন, তিন নম্বরে ব্যাটিংই করেন না আশরাফুল? আরেকটা প্রশ্ন থেকেই যায়, যদি নির্বাচকদের কথা মতো আশরাফুল এক্সট্রা অর্ডিনারি কিছু করতে পারে তবে জাতীয় দলে আশরাফুল কত নম্বরে ব্যাট করবেন? যেহেতেু আশরাফুল ৩ ও ৭ এ ব্যাট করেন না আর ৪, ৫,৬ তো তিন সিনিয়র ক্রিকেটারের জন্য ফিক্সড!

এটা সবারই জানা যে শুধু নির্বাচকরা আশরাফুলকে দলে নিতে সক্ষম নয়। তাই বলে ভক্তের এমন প্রশ্নে নির্বাচকদের এমন জবাব কি আপনি মিথ্যাচার বলবেন না কি অযুহাত?

Sharing is caring!

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ